বাংলা ব্লগারে আপনাকে স্বাগতম, সবার আগে সঠিক তথ্য পেতে আমাদের সাথে থাকুন সব সময়। আমাদের বেশির ভাব তথ্য বিশ্লেষন করে তারপর উপস্থাপন করা হয়। শতভাগ তথ্য অনলাইন থেকে সংগ্রহ করে বিশ্লেষনের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়। আপনি চাইলে যে কোন তথ্য আমাদের কাছেও পাঠাতে পারেন।
তো চলুন আজকের বিষয়’টি নিয়ে পড়ে নেওয়া যাক….

আকাঙ্ক্ষা ও বিকল্পের সন্ধান- এসবই উঠে এসেছে তাদের মুখ থেকে। তারই ধারাবাহিকতায় আজ দক্ষিণ ভারতের এক নারীর জীবনকথা নিয়ে একটি প্রতিবেদন করেছে বিবিসি বাংলা। তবে মেয়েটির অনুরোধে প্রতিবেদনটিতে তার নাম-পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে।

সেটি ছিল আমার বিয়ের প্রথম রাত। প্রথমবার কোনো পুরুষের সঙ্গে অন্তরঙ্গ হতে চলেছিলাম আমি। প্রাণের বান্ধবীদের কাছ থেকে শোনা কিছু কথা আর কয়েকটা পর্নো ভিডিও দেখে আমার মনের মধ্যে প্রথম রাতের যে ছবিটি বারে বারে মনে পড়ছিল, ইচ্ছাগুলোও জেগে উঠছিল সে রকমভাবেই। মাথা ঝুঁকিয়ে, হাতে দুধের গ্লাস নিয়ে আমি যখন শোবার ঘরে প্রবেশ করলাম, ততক্ষণ পর্যন্ত সেই ছবির মতোই সব কিছু চলছিল। আমি তখনও জানতাম না যে এর কিছুক্ষণের মধ্যেই আমার সেই স্বপ্নগুলো ভেঙে যাবে।

প্রথম রাতের স্বপ্নে এ রকমটা হওয়ার ছিল- আমি ঘরে আসার পর স্বামী আমাকে জড়িয়ে ধরবে, চুম্বনের স্রোতে ভাসিয়ে দেবে, আর সারা রাত ধরে আমাকে ভালোবাসবে। কিন্তু বাস্তব যে ছবিটি দেখলাম তা হল- আমি ঘরে ঢোকার আগেই আমার স্বামী ঘুমিয়ে পড়েছেন। ওই মুহূর্তে মনে হল আমার অস্তিত্বটাই যেন আমার স্বামী সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার করলেন।

আমার বয়স সেই সময়ে ছিল ৩৫। আমি কৌমার্য হারাইনি তখনও। স্বপ্নভঙ্গ কলেজে পড়ার সময়ে বা তার পরে যখন চাকরি করি, তখনও দেখতাম আমারই কাছের কোনো ছেলে আর মেয়ের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে উঠছে। তারা একে অন্যের হাত ধরে বা কাঁধে মাথা রেখে ঘুরে বেড়াত।

আমি মনে মনে ভাবতাম, আহা! যদি আমারও এ রকম কোনো সুযোগ আসত। আমারও তো ইচ্ছা হতো ওইভাবে কারও ঘনিষ্ঠ হতে!আমাদের পরিবারটা বেশ বড় ছিল- চার ভাই, এক বোন, বয়স্ক বাবা-মা। তবুও আমার সবসময়েই একা লাগত। আমার ভাইবোনদের সবারই বিয়ে হয়ে গিয়েছিল।

তাদের সবার পরিবার ছিল। কোনো সময়ে এটিও মনে হতো যে, ভাইবোনেরা কি আমার জন্য একটু চিন্তা করে? তাদের কী মনে হয় না যে আমারও বয়স হচ্ছে, তবুও আমি ততদিনও একা? আমারও তো প্রেম করতে ইচ্ছা করত। একাকীত্ব গ্রাস করছিল আমাকে।

কখনও কখনও মনে হতো যে, আমি খুব মোটা- সে জন্যই আমার ইচ্ছাগুলো পূরণ হয় না। কিন্তু পুরুষ মানুষ কি মোটা মেয়ে পছন্দ করে না? শুধু কি আমার ওজনের জন্য আমার পরিবার জীবনসঙ্গী খুঁজে পাচ্ছে না? তা হলে কি চিরজীবন আমাকে একাই কাটাতে হবে? এসব প্রশ্ন আমার মনের মধ্যে সব সময়ে ঘুরপাক খেত।

অতঃপর বিয়ে শেষমেশ আমার যখন ৩৫ বছর বয়স, তখন বছর চল্লিশের একজন আমাকে বিয়ে করতে এগিয়ে এলো। যখন প্রথম দেখা করি তার সঙ্গে, তখনই আমার মনের মধ্যে থাকা চিন্তাগুলো তাকে জানিয়েছিলাম। সে কোনো কথারই জবাব দেয়নি। আমার মনে হতো আমার কথাগুলো যেন মন দিয়ে শুনছেই না। সবসময়ে নিচের দিকে তাকিয়ে থাকত সে। কোনো কথারই জবাব দিত না; শুধু মাথা নাড়িয়ে উত্তর দিত।

আমি ভাবতাম আজকাল মেয়েদের থেকেও অনেক বেশি লজ্জা পায় পুরুষ মানুষ। আমার হবু স্বামীও বোধহয় সে রকম। তাই আমার কোনো কথারই জবাব দিচ্ছে না। কিন্তু বিয়ের পর প্রথম রাতের ঘটনায় আমি চিন্তায় পড়ে গেলাম। আমি শুধু ভাবছিলাম সে কেন ও রকম আচরণ করল। পরের দিন সকালে আমি যখন জিজ্ঞাসা করলাম, সে জবাব দিল যে তার শরীর ভালো ছিল না। কিন্তু তার থেকে আর একটি শব্দও বার করতে পারিনি।প্রথম রাতের পর দ্বিতীয়, তৃতীয় রাতও কেটে গেল একইভাবে।

সব গোপন করা হয় আমি শাশুড়ির কাছে বিষয়টি জানালাম। কিন্তু তিনিও ছেলের পক্ষ নিয়ে বলতে লাগলেন। ‘ও লজ্জা পাচ্ছে। ছোট থেকেই মেয়েদের সঙ্গে কথা বলতে অস্বস্তিবোধ করে। ছেলেদের স্কুলে পড়াশোনা করেছে তো সে জন্যই। ওর কোনো দিদি বা বোন নেই, কোনো মেয়ে বন্ধুও নেই। সে জন্যই এ রকম আচরণ,’ বলছিলেন আমার শাশুড়ি।

সাময়িক স্বস্তি পেয়েছিলাম কথাটা শুনে। কিন্তু ব্যাপারটি আমার মাথা থেকে কিছুতেই গেল না। ওদিকে আমার সব ইচ্ছা-আকাঙ্ক্ষা, স্বপ্ন এক এক করে ভেঙে যাচ্ছিল। শুধু যে শারীরিক চাহিদাই আমাকে কুরে কুরে খাচ্ছিল তা নয়। আমার স্বামী কোনো কথাই বলত না।

আমার মনে হতে লাগল যে, ও সবসময়েই আমাকে উপেক্ষা করা হচ্ছে। আমার থেকে সে পালিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। যখন কোনো নারী পোশাক ঠিক করে, তখনও পুরুষ মানুষ আড় চোখে সেদিকেই তাকিয়ে থাকে। কিন্তু আমি যদি রাতে সব পোশাক খুলেও ফেলি, তা হলেও আমার স্বামী সম্পূর্ণ উদাসীন থাকতেন।

তা হলে কি আমার ওজন তার এই ব্যবহারের কারণ? কোনো চাপে পড়ে আমাকে বিয়ে করেছে সে? এসব প্রশ্ন আমার মনের মধ্যে আসতে শুরু করেছিল তখন। কিন্তু এসব কথা কারও সঙ্গে যে শেয়ার করব, সেই উপায় নেই। আর কত অপেক্ষা আমার পরিবারের কারও সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলার উপায় ছিল না।

কারণ সেখানে সবাই মনে করতে শুরু করেছিল যে আমি খুব ভালো আছি। এদিকে আমার অপেক্ষার সীমারেখা ভাঙার দিকে চলেছে। আমাকে এ সমস্যার সমাধান নিজেকেই বের করতে হবে। বেশিরভাগ ছুটির দিনেও আমার স্বামী বাড়িতে থাকত না। হয় কোনো বন্ধুর বাড়িতে চলে যেত বা বয়স্ক বাবা-মাকে নিয়ে কোথাও যেত।

ঘটনাচক্রে সেদিন বাড়িতেই ছিল আমার স্বামী। আমি ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে সরাসরি জানতে চাইলাম, ‘আমাকে কি পছন্দ নয় তোমার? আমরা দুজনে একবারের জন্যও অন্তরঙ্গ হইনি এতদিনে।

তোমার সমস্যাটি কী?’ জলদি জবাব দিয়েছিল- ‘আমার তো কোনো সমস্যা নেই!’ উত্তর পেয়ে আমার মনে হল এটিই সুযোগ তার সঙ্গে অন্তরঙ্গ হওয়ার। আমি আকর্ষণ করার চেষ্টা করছিলাম তাকে। কিন্তু কোনো ফলই হচ্ছিল না। কোনোভাবেই তাকে উত্তেজিত করতে পারলাম না।

আমি বুঝতে পারছিলাম না যে এটি নিয়ে কার সঙ্গে কথা বলব। একদিন হঠাৎ করেই জানতে পারলাম যে সে নপুংসক। বিয়ের আগেই ডাক্তাররা এটি তাকে নিশ্চিত করেছিল। সে নিজে আর তার বাবা-মা সবকিছুই জানতেন। কিন্তু আমাকে কিছু জানানো হয়নি। আমাকে ধোঁকা দেয়া হয়েছে।

আমি সত্যিটি জেনে ফেলেছিলাম; কিন্তু তার কোনো লজ্জা ছিল না এটি নিয়ে। এর পরও কখনও সে নিজের ভুলটা স্বীকার করেনি। কেউ শুনল না আমার কথা সমাজ তো নারীদের সামান্য ভুলচুককেও বড় করে তুলে ধরে। কিন্তু কোনো পুরুষের যদি কোনো ভুল হয়, সে ক্ষেত্রেও দোষ আসে মেয়েদের ওপরেই।

আমার আত্মীয়রা পরামর্শ দিল, ‘শারীরিক মিলনটাই তো জীবনের সব কিছু নয়। তুমি বাচ্চা দত্তক নেয়ার কথা ভাবছ না কেন?’আমার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা হাতজোড় করে বলল, ‘সত্যিটা যদি জানাজানি হয়ে যায় তা হলে লজ্জায় আমাদের মাথা কাটা যাবে।’ আমার পরিবার বলে দিল- ‘এটি তোমার ভাগ্য’।

তবে যে কথাটি আমার স্বামী বলল, তাতে আমি হতবাক হয়ে গিয়েছিলাম। ‘তোমার যা ভালো লাগে করতে পার। যদি মনে করো, তা হলে অন্য কোনো পুরুষের সঙ্গেও শুইতে পারো। আমি তোমাকে বিরক্ত করব না, কাউকে কিছু বলবও না।

তা থেকে যদি তোমার সন্তান জন্ম নেয়, তাকে আমি নিজের সন্তান বলেও মেনে নেব’। কোনো মেয়ে কি তার স্বামীর কাছ থেকে এসব শুনতে পারে? সে একটি বেইমান। নিজের আর পরিবারকে লোকলজ্জা থেকে বাঁচানোর জন্য ওইসব বলছিল।

আমার পা জড়িয়ে ধরে স্বামী বলেছিল- ‘প্লিজ, এটি কাউকে বলো না। আমাকে ডিভোর্সও দিও না’। সে যেসব উপদেশ দিয়েছিল, আমি সেগুলো কল্পনাও করতে পারি না।আমার সামনে দুটো রাস্তা খোলা ছিল- হয় তাকে ত্যাগ করা অথবা তাকে নিজের জীবনসঙ্গী রেখে দিয়ে আমার নিজের ইচ্ছা-আকাঙ্ক্ষাগুলোকে ত্যাগ করা।

শেষমেশ আমারই জয় হল। সেই তথাকথিত স্বামীর ঘর থেকে বেরিয়ে এলাম আমি। আমার বাবা-মা কিন্তু আমাকে ফিরিয়ে নেয়নি। কয়েকজন বন্ধুর সাহায্যে আমি একটি মেয়েদের হোস্টেলে চলে যাই। বিয়ের আগে চাকরিটা ছেড়ে দিয়েছিলাম। কিছু দিনের চেষ্টায় একটা নতুন চাকরিও জোগাড় করলাম। খুব ধীরে হলেও আমার জীবনটা আবার নিজের ছন্দে ফিরতে শুরু করছিল। আমি কোর্টে বিয়ে বিচ্ছেদের মামলা ফাইল করলাম।

সেখানেও আমার স্বামী আর তার পরিবার নির্লজ্জের মতো সত্যটা গোপন করে বিয়ে ভাঙার জন্য আমার ওপরেই দোষারোপ করে। এমনকি বিয়ের পর অন্য সম্পর্ক গড়ে তোলার দোষও দেয় আমার ওপরে। লড়াই করে গেলাম আমি লড়াইটা থামাইনি। নিজের মেডিকেল পরীক্ষা করাই। তিন বছর লেগে গিয়েছিল বিয়ে বিচ্ছেদ পেতে।

আমার যেন পুনর্জন্ম হল। আজ আমার ৪০ বছর বয়স; কিন্তু আমি এখনও কুমারী। এর মধ্যে বেশ কয়েকজন পুরুষের সঙ্গে আমার সম্পর্ক তৈরি হয়েছে। তবে তাদের সবারই ভালোবাসাটা ছিল শারীরিক। কেউ বিয়ে করা বা দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্ক গড়ে তোলায় ইচ্ছুক ছিল না। কিন্তু এখন আমি পুরুষদের কাছ থেকে একটু দূরে থাকারই চেষ্টা করি।

আমি শুধু সেসব পুরুষের সঙ্গেই বন্ধুত্ব রাখতে চাই, যারা আমার খেয়াল রাখবে, আমার মনের ইচ্ছাগুলোকে বোঝার চেষ্টা করবে, জীবনভর আমার সঙ্গে চলার ও সঙ্গে থাকার অঙ্গীকার করবে। এখনও সে রকম পুরুষের অপেক্ষায় আছি। আর যতদিন না সত্যিকারের সে রকম পুরুষ পাচ্ছি, ততদিন ওয়েবসাইটই আমার সব থেকে অন্তরঙ্গ বন্ধু।

News Reporter

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *