বাংলা ব্লগারে আপনাকে স্বাগতম, সবার আগে সঠিক তথ্য পেতে আমাদের সাথে থাকুন সব সময়। আমাদের বেশির ভাব তথ্য বিশ্লেষন করে তারপর উপস্থাপন করা হয়। শতভাগ তথ্য অনলাইন থেকে সংগ্রহ করে বিশ্লেষনের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়। আপনি চাইলে যে কোন তথ্য আমাদের কাছেও পাঠাতে পারেন।
তো চলুন আজকের বিষয়’টি নিয়ে পড়ে নেওয়া যাক….

মানুষের জীবনে কতই না ভুল থাকে। এরমাঝেও কিছু ভুল থাকে যেগুলো আর শোধরানো যায় না। অনুশোচনা করেই কাটাতে হয়। তেমন অনুশোচনার কথাই জানালেন নীল তারকা মিয়া খলিফা।

২০১৪ ও ২০১৫ সালে মাত্র তিন মাস ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করেছেন। আর এর মধ্য দিয়েই প’র্নহাবের শীর্ষ তারকা বনে যান। ব্যক্তিগত হীনমন্যতা থেকেই এই সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য এই পেশায় এসেছিলেন বলে জানান মিয়া।

নীল জগত থেকে বিদায় নেওয়ার পর অনেক কষ্ট সইতে হয়েছে মিয়া খলিফাকে। এখন তার অনুভব, কিছু ভুল হয়ে যায় জীবনে, যা ‘ক্ষমার অযোগ্য’। মানুষ যখন তাকে ‘পোশাকের ভেতর দিয়ে’ দেখে, ‘খুব লজ্জা’ হয় তার।

সম্প্রতি ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসির ‘হার্ড টক’-এ স্টিফেন সাকুরের সঙ্গে আলাপচারিতায় এমনটাই বলেন সাবেক নীল তারকা মিয়া খলিফা।

অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘ছোটবেলা আমার ওজনের জন্য ভুগেছি এবং নিজেকে কখনও পুরুষের দৃষ্টি আকর্ষণের যোগ্য বলে মনে হতো না। আমার নারীত্বকে যেন কেউ অনুভব করতো না।’

অল্প বয়সে অনেক টাকা রোজগার, অজানা রঙিন জগতে হারিয়ে যাওয়ার হাতছানি থেকেই এই পেশায় গিয়েছিলেন মিয়া।

প্রথম যখন নীল ছবিতে কাজ করার প্রস্তাব পান তিনি বুঝতে পারেননি এটিকে কীভাবে প্রত্যাখ্যান করবেন। মোহভঙ্গ হয় মাত্র তিন মাসেই। মাত্র ১২ হাজার ডলার আয় করেছেন, বিনিময়ে তছনছ হয়ে গেছে গোটা জীবন। বাবা-মা ও পরিবারের লোকজন তাকে ত্যাগ করেছেন।

পর্ন ছেড়ে দেওয়ার পরেও আর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি। মধ্যপ্রাচ্যসহ বেশকিছু মুসলিম অধ্যুষিত দেশে নিষিদ্ধ করা হয় তাকে। আইএসআইএসের কাছ থেকে খুনের হুমকিও পান।

News Reporter

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *