বিভিন্ন ধরনের চর্মরোগ ও অবস্থা যৌনাঞ্চলে বা যৌনাঙ্গে সংগঠিত হলেও সেগুলোর সব যৌন রোগ নয়। অনেকের মধ্যে এরকম ভুল ধারণা রয়েছে, যৌনাঞ্চলে কোনো রোগ বা সমস্যা হওয়া মানেই যৌন রোগ। সে কারণে এ স্থানে সমস্যা বা রোগ হলে রোগীরা চিকিৎসা গ্রহণের জন্য বেশ তৎপর হয়ে ওঠেন। এই ভয়ে যে, তারা হয়তো যৌন রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। এ ধারণা আদৌ ঠিক নয়। কেননা যৌন রোগ সেসব রোগকে বলে, যা যৌন সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে সংক্রমিত হয়। প্রথমেই লাইকেন প্লানাস নাম রোগটি দিয়ে আলোচনা করা যাক। এই চর্মরোগ যৌনাঞ্চল ছাড়া শরীরের অন্যান্য স্থানে হয়। দেখতে বেগুনী ফুসকুড়ি বা প্লাকের রঙের মতো। যৌনাঙ্গে এই রোগ হলে রোগী প্রচণ্ড চুলকানির অভিযোগ করেন। বিশেষ করে পুরুষাঙ্গ ও অণ্ডকোষ থলিতে, মলদ্বারের আশপাশে এবং মেয়েদের যৌনাঙ্গে এই রোগ হয়। যৌনাঙ্গের আর্দ্র স্থানে হলে আক্রান্ত স্থান ফুসকুড়ির মতো অথবা গোলাকার এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সাদা দেখায়। যৌনাঞ্চল ছাড়াও অন্যান্য স্থানে; যেমন কব্জি, বাহু, পা এবং মুখের ভেতর এ রোগ হয়ে থাকে। এসব স্থানে এই রোগ নিজ থেকেই ভালো হয়, তবে স্টেরয়েড মলম প্রয়োগে নিষ্কৃতি পাওয়া সম্ভব।

মুখে ঘায়ের সমস্যা আপাতদৃষ্টিতে নিরীহ মনে হলেও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রায় দুই শতাধিক রোগের প্রাথমিক লক্ষণ প্রকাশ পায় এর মাধ্যমে। মুখের ভেতরের মাংসে বা জিহ্বায় ঘা হয়, ব্যথা করতে থাকে, কিছু খেতে গেলে জ্বলে-

মোটামুটি এগুলোই হচ্ছে মুখে ঘা এর প্রাথমিক লক্ষণ।কারো কারো ক্ষেত্রে মুখ ফুলে যাওয়া বা পুঁজ বের হওয়ার মতো সমস্যাও দেখা দিতে পারে। সাধারণত, মুখে গালের ভেতরের অংশে বা জিভে ঘা হয় কোনোভাবে কেটেছড়ে গেলে। আবার শক্ত ব্রাশ দিয়ে দাঁত পরিষ্কার করলেও এ সমস্যা দেখা দেয় অনেকের। খুব গরম পানীয় পান করলে বা কিছু চিবাতে গিয়ে গালের ভেতরে কামড় লাগলেও ঘা হতে পারে। এবার এই ভিডিও তে দেখুন পুরুষাঙ্গের মাথায় কি লাগালে হয়ে উঠবেন মহা রাজা

News Reporter

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *